ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
রামকান্তুপুর ইউয়িনের মোহনশাহ’র বটতলার গোল চত্বর এর উদ্বোধন রাজবাড়ীতে মাদকদ্রব্যর অপব্যবহার ও পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস ও আলোচনা সভা রাজবাড়ীতে ডিবি পুলিশের অভিযানে মাদক ব্যবসায়ী মোজাম্মেল আটক রাজবাড়ী শহর রক্ষা প্রকল্প (ফেইজ-২) বাস্তবায়ন বিষয়ক সাধারণ সমন্বয় সভা সন্ধ্যার মধ্যে বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান করতে হবে-প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী রামকান্তপুর ইউনিয়ন ও পৌর নবাসীকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সোহেল রানা। ঈদুল ফিতর’ উপলক্ষে চন্দনী ইউনিয়বাসীর সুস্বাস্থ্য, সুখ-সমৃদ্ধি ও অনাবিল আনন্দ কামনা করে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন-শাহিনুর পৌরবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন যুবলীগ নেতা মীর সজল জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকল সম্প্রদায়ের মানুষকেঈদের শুভেচ্ছা কাজী ইরাদত আলীর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে ছিন্নমূল মানুষের মাঝে ইফতার বিতরণ

দাদির প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ-কাজী শান্তনুর

দাদা দাদির প্রতি প্রত্যেকে নাতিদেরই থাকে অফুরন্ত ভালোবাসা। থাবেই না কেন..? কারণ এই সম্পর্ক হলো অনেক মধুর, যে সম্পর্ক জীবনের অনেক মানে খুজেঁ বের করে।করে তোলে আনন্দময় যারা ছোট বেলা থেকে দাদির ভালোবাসা পাইনি তারা কখনো বুঝবে না দাদির ভালোবাসা কতটা মধুর।কাজী রাকিবুল হোসেন শান্তনু র ভাগ্য ভালো তিনি দাদির ভালোবাসা পেয়েছেন। তাই তো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক তার নিজ আইডিতে দাদির প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করেছেন তিনি।

এবার আসুন দেখে নেওয়া যাক, রাজবাড়ীর জেলা আওয়ামী লীগরে যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলীর এক মাত্র ছেলে শান্তনু দাদির প্রতি কি ভালোবাসা প্রকাশ করেছেন।

দাদির প্রতি শান্তনুর ভালোবাসঃ আমার দাদি বাগান করতে পছন্দ করতেন।কিন্তু আজ দাদি নেই শুধু বাগান রয়েগেছে! কিন্তু  সেই সুভাষ আর পাইনা। কারন দাদির হাতের ছোয়া আর পরে এই বাগানে।তাইতো সব সুভাষ চলে গেছে দাদির চলে যাওয়াতে। আজও বাগানে আসলেই চোঁখের সামনে ভেষে উঠে দাদি বুঝি বাগানের মধ্যেই চলাফেরা করছে আর মালিকে বলছে এই ফুলগাছটাতে পানি দাও ঐ গাছটাতে পানি দাও।যদিও এটা আমার মনের কল্পনা কিন্তু দাদি থাকলে এমন করে বলতো হয়তো।

ছোট বেলায় যখন আমি মাঝে মাঝে বিকেলে আমাদের বাগানে যেতাম, দেখতাম দাদি লোকদেরকে বাগানের কাজ বুঝিয়ে দিচ্ছে। আমি দাড়িয়ে বাগানের কাজ কিভাবে করে তা দেখতাম, তখন কখনও কখনও আমার দাদি বলতো, ‘আমি মারা গেলে আমাকে তোর দাদার কবরের পাশেই রেখে দিবি’। সেই ছোট্ট আমি তখন ‘মারা যাওয়ার’ গুরুত্ব বুঝতে পারতাম না বরং তাকিয়ে থাকতাম দাদির বাগানের রঙিন গোলাপগুলোর দিকে।

সেই বাগানে আমার দাদার পাশেই দাদি শুয়ে আছেন। আমাদের বাগানে এখনও অনেক ধরনের ফুল ধরে, কিন্তু সেই রঙিন গোলাপগুলো ধরে না।কিছু ভালোবাসা প্রকৃতি নিয়ে আসে আবার কিছু ভালোবাসা প্রকৃতিই নিয়ে যায়। মাগফিরাত শেষ হয়ে আজ নাজাতের ছয় দিন চলছে। সবাই আমার দাদি-দাদা সহ প্রতিটি মৃত মানুষের মাগফিরাত এবং নাজাতের জন্য দোয়া করবেন। দোয়া করবেন যেন সহজ হয় আমাদের পৃথিবী, কবর এবং আখিরাতের জীবন।
এই পৃথিবীতে আমরা সবাই মালী, যে যে গাছ রোপণ করবো তার হিসেবেই ফুল কিংবা ফল হবে।

‘সুবহানাল্লাহি ওয়াল হামদুলিল্লাহি ওয়া লা ইলাহা ইল্লাল্লহু ওয়াল্লাহু আকবার’।

জাযাকাল্লাহু খাইরান!

 

Tag :

আপনার মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করুন

লেখক তথ্য সম্পর্কে

Meraj Gazi

জনপ্রিয় পোস্ট

রামকান্তুপুর ইউয়িনের মোহনশাহ’র বটতলার গোল চত্বর এর উদ্বোধন

দাদির প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ-কাজী শান্তনুর

আপডেটের সময় : ১২:৫০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৩ জুন ২০১৮

দাদা দাদির প্রতি প্রত্যেকে নাতিদেরই থাকে অফুরন্ত ভালোবাসা। থাবেই না কেন..? কারণ এই সম্পর্ক হলো অনেক মধুর, যে সম্পর্ক জীবনের অনেক মানে খুজেঁ বের করে।করে তোলে আনন্দময় যারা ছোট বেলা থেকে দাদির ভালোবাসা পাইনি তারা কখনো বুঝবে না দাদির ভালোবাসা কতটা মধুর।কাজী রাকিবুল হোসেন শান্তনু র ভাগ্য ভালো তিনি দাদির ভালোবাসা পেয়েছেন। তাই তো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক তার নিজ আইডিতে দাদির প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করেছেন তিনি।

এবার আসুন দেখে নেওয়া যাক, রাজবাড়ীর জেলা আওয়ামী লীগরে যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলীর এক মাত্র ছেলে শান্তনু দাদির প্রতি কি ভালোবাসা প্রকাশ করেছেন।

দাদির প্রতি শান্তনুর ভালোবাসঃ আমার দাদি বাগান করতে পছন্দ করতেন।কিন্তু আজ দাদি নেই শুধু বাগান রয়েগেছে! কিন্তু  সেই সুভাষ আর পাইনা। কারন দাদির হাতের ছোয়া আর পরে এই বাগানে।তাইতো সব সুভাষ চলে গেছে দাদির চলে যাওয়াতে। আজও বাগানে আসলেই চোঁখের সামনে ভেষে উঠে দাদি বুঝি বাগানের মধ্যেই চলাফেরা করছে আর মালিকে বলছে এই ফুলগাছটাতে পানি দাও ঐ গাছটাতে পানি দাও।যদিও এটা আমার মনের কল্পনা কিন্তু দাদি থাকলে এমন করে বলতো হয়তো।

ছোট বেলায় যখন আমি মাঝে মাঝে বিকেলে আমাদের বাগানে যেতাম, দেখতাম দাদি লোকদেরকে বাগানের কাজ বুঝিয়ে দিচ্ছে। আমি দাড়িয়ে বাগানের কাজ কিভাবে করে তা দেখতাম, তখন কখনও কখনও আমার দাদি বলতো, ‘আমি মারা গেলে আমাকে তোর দাদার কবরের পাশেই রেখে দিবি’। সেই ছোট্ট আমি তখন ‘মারা যাওয়ার’ গুরুত্ব বুঝতে পারতাম না বরং তাকিয়ে থাকতাম দাদির বাগানের রঙিন গোলাপগুলোর দিকে।

সেই বাগানে আমার দাদার পাশেই দাদি শুয়ে আছেন। আমাদের বাগানে এখনও অনেক ধরনের ফুল ধরে, কিন্তু সেই রঙিন গোলাপগুলো ধরে না।কিছু ভালোবাসা প্রকৃতি নিয়ে আসে আবার কিছু ভালোবাসা প্রকৃতিই নিয়ে যায়। মাগফিরাত শেষ হয়ে আজ নাজাতের ছয় দিন চলছে। সবাই আমার দাদি-দাদা সহ প্রতিটি মৃত মানুষের মাগফিরাত এবং নাজাতের জন্য দোয়া করবেন। দোয়া করবেন যেন সহজ হয় আমাদের পৃথিবী, কবর এবং আখিরাতের জীবন।
এই পৃথিবীতে আমরা সবাই মালী, যে যে গাছ রোপণ করবো তার হিসেবেই ফুল কিংবা ফল হবে।

‘সুবহানাল্লাহি ওয়াল হামদুলিল্লাহি ওয়া লা ইলাহা ইল্লাল্লহু ওয়াল্লাহু আকবার’।

জাযাকাল্লাহু খাইরান!