ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
রামকান্তুপুর ইউয়িনের মোহনশাহ’র বটতলার গোল চত্বর এর উদ্বোধন রাজবাড়ীতে মাদকদ্রব্যর অপব্যবহার ও পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস ও আলোচনা সভা রাজবাড়ীতে ডিবি পুলিশের অভিযানে মাদক ব্যবসায়ী মোজাম্মেল আটক রাজবাড়ী শহর রক্ষা প্রকল্প (ফেইজ-২) বাস্তবায়ন বিষয়ক সাধারণ সমন্বয় সভা সন্ধ্যার মধ্যে বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান করতে হবে-প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী রামকান্তপুর ইউনিয়ন ও পৌর নবাসীকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সোহেল রানা। ঈদুল ফিতর’ উপলক্ষে চন্দনী ইউনিয়বাসীর সুস্বাস্থ্য, সুখ-সমৃদ্ধি ও অনাবিল আনন্দ কামনা করে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন-শাহিনুর পৌরবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন যুবলীগ নেতা মীর সজল জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকল সম্প্রদায়ের মানুষকেঈদের শুভেচ্ছা কাজী ইরাদত আলীর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে ছিন্নমূল মানুষের মাঝে ইফতার বিতরণ

রাজবাড়ীতে নতুন এলাকা বন্যায় প্লাবিত, ত্রাণ স্বল্পতা

আল-আমিন, রাজবাড়ী টুডে: উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে গত কয়েকদিনে পদ্মার পানি বেড়ে রাজবাড়ী জেলার চার উপজেলার নদী তীরবর্তী এলাকা ও নিম্নাঞ্চলের প্রায় ২৭ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এছাড়া বন্যার কারণে সাময়িকভাবে বন্ধ রয়েছে জেলার ৩৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বন্যার পানিতে নষ্ট হয়েছে প্রায় ১ হাজার ৯৪৪ হেক্টর ফসলি জমি। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন বানভাসি এলাকার এসব মানুষেরা।

শুক্রবার পর্যন্ত গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া গেজ স্টেশন পয়েন্টে পদ্মার পানি বিপদসীমার ১০২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত ১২ ঘন্টায় বেড়েছে ১০ সেন্টিমিটার পানি।

রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রকাশ কৃষ্ণ সরকার বলেন, ‘নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে কয়েকটি স্থানে ভাঙন দেখা দিয়েছে। তবে তা এখনও নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রয়েছে। আগামী কয়েকদিন পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকতে পারে।’সবচেয়ে বেশি প্লাবিত হয়েছে গোয়ালন্দ উপজেলার নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষ। গোয়ালন্দের নদী তীরবর্তি এলাকার বানভাসি মানুষ জানিয়েছেন, বন্যায় বাড়িঘর, ফসলি জমি, মাছের ঘের ভেসে গেছে। কর্মহীন হয়ে মানবেতর দিন পার করছেন পানিবন্দিরা। সরকারিভাবে যে ত্রাণ দেওয়া হচ্ছে তা প্রয়োজনের তুলনায় একেবারেই কম। দুশ্চিন্তায় ঘুম হারাম হয়ে গেছে তাদের।

এছাড়া, পরিবারের শিশু ও বৃদ্ধ এবং গৃহপালিত পশু নিয়ে বেশি বিপাকে পড়তে হচ্ছে বলে জানান তারা।গোয়ালন্দ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) আবু সাঈদ জানান, গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া, দেবগ্রাম, উজানচর ও ছোটভাকলা ইউনিয়নের ১৬ হাজার ৯০০ টি পরিবার পানিবন্দি হয়েছেন। এদের জন্য ৭৫ মেট্রিক টন চাল ও এক লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। গত ১৭ আগস্ট বিকেলে সরকারের জিআর (জেনারেল রিলিফ) প্রকল্পের আওতায় ২০০ পরিবারকে ৫০০ করে টাকা এবং ২০০ পরিবারকে ১০ কেজি করে চাল ত্রাণ হিসেবে দেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে আরও পরিবারকে ত্রাণ দেওয়া হবে।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) এস এম মনোয়ার মাহমুদ জানান, সদর উপজেলার বরাট, মিজানপুর, চন্দনী ও খানগঞ্চ ইউনিয়নের ৩হাজার ৯৩১টি পরিবার পানিবন্দি রয়েছেন। এদের জন্য ৩৩ মেট্রিক টন চাল এবং এক লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে গতকাল ১৭ আগস্ট বিকালে সরকারের জিআর (জেনারেল রিলিফ) প্রকল্পের আওতায় ২০০ পরিবারকে ৫০০ করে টাকা এবং ২০০ পরিবারকে ১০ কেজি করে চাল ত্রাণ হিসেবে দেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে আরও পরিবারকে ত্রাণ দেওয়া হবে।

কালুখালী প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. মোকসেদুল আলম জানান, কালুখালী উপজেলার কালিকাপুর ও রতনদিয়া ইউনিয়নে বন্যায় ৩ হাজার ৮৯৪ টি পরিবার পানিবন্দি হয়েছেন। এদের জন্য ৩৮.৪৯০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে গত ১০ই আগস্ট পর্যন্ত পানিবন্দির সংখ্যা ছিল ২হাজার ৯৯৮ জন। এদের পরিবারপ্রতি গত সপ্তাহেই ১০ কেজি করে চাল দেওয়া হয়েছে। এই এক সপ্তাহে আবার নতুন করে ৮৯৬টি পরিবার পানিবন্দি হয়েছে। এদেরও শিগগিরই ১০ কেজি করে চাল দেওয়া হবে।পাংশা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মিজানুর রহমান বলেন, পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ও বাহাদুরপুর ইউনিয়নে ১ হাজার ৬৪৩টি পরিবার পানিবন্দি হয়েছেন। এদের জন্য ১০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ হয়েছে। শিগগিরই তা বিতরণ করা হবে।

এদিকে, জেলায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে ২৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৯টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। পানিবন্দি হওয়ার কারণে ইতোমধ্যে বিদ্যালয়গুলোতে পাঠদান কার্যক্রম সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।রাজবাড়ী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তৌহিদুল ইসলাম জানান, বন্যায় পানিবন্দি হয়ে রাজবাড়ী সদর উপজেলায় ৮টি, গোয়ালন্দে ১৩টি, কালুখালীতে ৪টি ও পাংশায় ৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমান বলেন, পানিবন্দির কারণে গোয়ালন্দে ৩টি, কালুখালীতে ১টি ও পাংশায় ১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এছাড়া গোয়ালন্দের আরও ২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আশ্রয়কেন্দ্রে বন্যা কবলিতরা আশ্রয় নেওয়ার কারণে ওই উপজেলায় মোট ৫টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় বন্ধ রয়েছে।

রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক মো. শওকত আলী জানান, রাজবাড়ী ১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ কাজী কেরামত আলীর সঙ্গে বন্যা কবলিত এলাকাগুলোতে গিয়ে ত্রাণ বিতরণ করা হচ্ছে। যতদিন বন্যার পানি থাকবে ততদিন পর্যন্ত বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ দেওয়া হবে। এছাড়া, বন্যাকবলিত পরিবারগুলোর জন্য ৪টি উপজেলায় ২১টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এরমধ্যে ৩টিতে ১১৯ টি পরিবার ইতিমধ্যে আশ্রয় নিয়েছেন। বন্যায় জেলার ৪ টি উপজেলায় ১হাজার ৯৪৪ হেক্টর ফসলি জমি ক্ষতি হয়েছে বলেও জানান তিনি।

Tag :

আপনার মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করুন

লেখক তথ্য সম্পর্কে

Meraj Gazi

জনপ্রিয় পোস্ট

রামকান্তুপুর ইউয়িনের মোহনশাহ’র বটতলার গোল চত্বর এর উদ্বোধন

রাজবাড়ীতে নতুন এলাকা বন্যায় প্লাবিত, ত্রাণ স্বল্পতা

আপডেটের সময় : ০৬:০৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৭

আল-আমিন, রাজবাড়ী টুডে: উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে গত কয়েকদিনে পদ্মার পানি বেড়ে রাজবাড়ী জেলার চার উপজেলার নদী তীরবর্তী এলাকা ও নিম্নাঞ্চলের প্রায় ২৭ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এছাড়া বন্যার কারণে সাময়িকভাবে বন্ধ রয়েছে জেলার ৩৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বন্যার পানিতে নষ্ট হয়েছে প্রায় ১ হাজার ৯৪৪ হেক্টর ফসলি জমি। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন বানভাসি এলাকার এসব মানুষেরা।

শুক্রবার পর্যন্ত গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া গেজ স্টেশন পয়েন্টে পদ্মার পানি বিপদসীমার ১০২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত ১২ ঘন্টায় বেড়েছে ১০ সেন্টিমিটার পানি।

রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রকাশ কৃষ্ণ সরকার বলেন, ‘নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে কয়েকটি স্থানে ভাঙন দেখা দিয়েছে। তবে তা এখনও নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রয়েছে। আগামী কয়েকদিন পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকতে পারে।’সবচেয়ে বেশি প্লাবিত হয়েছে গোয়ালন্দ উপজেলার নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষ। গোয়ালন্দের নদী তীরবর্তি এলাকার বানভাসি মানুষ জানিয়েছেন, বন্যায় বাড়িঘর, ফসলি জমি, মাছের ঘের ভেসে গেছে। কর্মহীন হয়ে মানবেতর দিন পার করছেন পানিবন্দিরা। সরকারিভাবে যে ত্রাণ দেওয়া হচ্ছে তা প্রয়োজনের তুলনায় একেবারেই কম। দুশ্চিন্তায় ঘুম হারাম হয়ে গেছে তাদের।

এছাড়া, পরিবারের শিশু ও বৃদ্ধ এবং গৃহপালিত পশু নিয়ে বেশি বিপাকে পড়তে হচ্ছে বলে জানান তারা।গোয়ালন্দ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) আবু সাঈদ জানান, গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া, দেবগ্রাম, উজানচর ও ছোটভাকলা ইউনিয়নের ১৬ হাজার ৯০০ টি পরিবার পানিবন্দি হয়েছেন। এদের জন্য ৭৫ মেট্রিক টন চাল ও এক লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। গত ১৭ আগস্ট বিকেলে সরকারের জিআর (জেনারেল রিলিফ) প্রকল্পের আওতায় ২০০ পরিবারকে ৫০০ করে টাকা এবং ২০০ পরিবারকে ১০ কেজি করে চাল ত্রাণ হিসেবে দেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে আরও পরিবারকে ত্রাণ দেওয়া হবে।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) এস এম মনোয়ার মাহমুদ জানান, সদর উপজেলার বরাট, মিজানপুর, চন্দনী ও খানগঞ্চ ইউনিয়নের ৩হাজার ৯৩১টি পরিবার পানিবন্দি রয়েছেন। এদের জন্য ৩৩ মেট্রিক টন চাল এবং এক লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে গতকাল ১৭ আগস্ট বিকালে সরকারের জিআর (জেনারেল রিলিফ) প্রকল্পের আওতায় ২০০ পরিবারকে ৫০০ করে টাকা এবং ২০০ পরিবারকে ১০ কেজি করে চাল ত্রাণ হিসেবে দেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে আরও পরিবারকে ত্রাণ দেওয়া হবে।

কালুখালী প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. মোকসেদুল আলম জানান, কালুখালী উপজেলার কালিকাপুর ও রতনদিয়া ইউনিয়নে বন্যায় ৩ হাজার ৮৯৪ টি পরিবার পানিবন্দি হয়েছেন। এদের জন্য ৩৮.৪৯০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে গত ১০ই আগস্ট পর্যন্ত পানিবন্দির সংখ্যা ছিল ২হাজার ৯৯৮ জন। এদের পরিবারপ্রতি গত সপ্তাহেই ১০ কেজি করে চাল দেওয়া হয়েছে। এই এক সপ্তাহে আবার নতুন করে ৮৯৬টি পরিবার পানিবন্দি হয়েছে। এদেরও শিগগিরই ১০ কেজি করে চাল দেওয়া হবে।পাংশা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মিজানুর রহমান বলেন, পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ও বাহাদুরপুর ইউনিয়নে ১ হাজার ৬৪৩টি পরিবার পানিবন্দি হয়েছেন। এদের জন্য ১০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ হয়েছে। শিগগিরই তা বিতরণ করা হবে।

এদিকে, জেলায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে ২৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৯টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। পানিবন্দি হওয়ার কারণে ইতোমধ্যে বিদ্যালয়গুলোতে পাঠদান কার্যক্রম সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।রাজবাড়ী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তৌহিদুল ইসলাম জানান, বন্যায় পানিবন্দি হয়ে রাজবাড়ী সদর উপজেলায় ৮টি, গোয়ালন্দে ১৩টি, কালুখালীতে ৪টি ও পাংশায় ৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমান বলেন, পানিবন্দির কারণে গোয়ালন্দে ৩টি, কালুখালীতে ১টি ও পাংশায় ১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এছাড়া গোয়ালন্দের আরও ২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আশ্রয়কেন্দ্রে বন্যা কবলিতরা আশ্রয় নেওয়ার কারণে ওই উপজেলায় মোট ৫টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় বন্ধ রয়েছে।

রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক মো. শওকত আলী জানান, রাজবাড়ী ১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ কাজী কেরামত আলীর সঙ্গে বন্যা কবলিত এলাকাগুলোতে গিয়ে ত্রাণ বিতরণ করা হচ্ছে। যতদিন বন্যার পানি থাকবে ততদিন পর্যন্ত বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ দেওয়া হবে। এছাড়া, বন্যাকবলিত পরিবারগুলোর জন্য ৪টি উপজেলায় ২১টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এরমধ্যে ৩টিতে ১১৯ টি পরিবার ইতিমধ্যে আশ্রয় নিয়েছেন। বন্যায় জেলার ৪ টি উপজেলায় ১হাজার ৯৪৪ হেক্টর ফসলি জমি ক্ষতি হয়েছে বলেও জানান তিনি।