ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
রামকান্তুপুর ইউয়িনের মোহনশাহ’র বটতলার গোল চত্বর এর উদ্বোধন রাজবাড়ীতে মাদকদ্রব্যর অপব্যবহার ও পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস ও আলোচনা সভা রাজবাড়ীতে ডিবি পুলিশের অভিযানে মাদক ব্যবসায়ী মোজাম্মেল আটক রাজবাড়ী শহর রক্ষা প্রকল্প (ফেইজ-২) বাস্তবায়ন বিষয়ক সাধারণ সমন্বয় সভা সন্ধ্যার মধ্যে বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান করতে হবে-প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী রামকান্তপুর ইউনিয়ন ও পৌর নবাসীকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সোহেল রানা। ঈদুল ফিতর’ উপলক্ষে চন্দনী ইউনিয়বাসীর সুস্বাস্থ্য, সুখ-সমৃদ্ধি ও অনাবিল আনন্দ কামনা করে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন-শাহিনুর পৌরবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন যুবলীগ নেতা মীর সজল জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকল সম্প্রদায়ের মানুষকেঈদের শুভেচ্ছা কাজী ইরাদত আলীর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে ছিন্নমূল মানুষের মাঝে ইফতার বিতরণ

বিজয়ের মাসে লাল-সবুজে মিলে ওরা আছে, রাজবাড়ীতে জাতীয় পতাকা বিক্রেতা মাদারীপুরের অনার্স পড়ুয়া শিক্ষার্থী

মো: মাহ্ফুজুর রহমান, রাজবাড়ী টুডে:

বিজয়ের মাস ডিসেম্বর। এ বিজয়ের মাসে, লাল-সবুজ মিশে, স্বাধীনতার চেতনাকে বাঙালী জাতিকে আবারো মনে করিয়ে দিতে আসে। ডিসেম্বর এলেই সবুজের বুকে লাল পতাকা হাতে দেখা মেলে ওদের। এ মাসে জাতীয় পতাকা বিক্রিতে আত্মতৃপ্তি পায় ওরা। এমন একজন মাদারীপুর জেলার শিবচর এলাকার বাসিন্দা সাদেক খান (১৮)।

মঙ্গলবার সকালে কথা হয় সেই পতাকা বিক্রেতার সাথে। পতাকা বিক্রেতা সাদেক খান মাদারীপুর জেলা শহরের সৈয়দ আবুল হোসেন কলেজের অনার্স (বিএসএস) ২য় বর্ষের ছাত্র। ৩ বোন ১ ভাইয়ের মধ্যে সাদেক সবার ছোট। স্বাধীনতার বীর যোদ্ধাদের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা আর শ্রদ্ধা রেখেই সে এবারই প্রথম বিজয়ের পতাকা বিক্রিতে নেমেছে বিভিন্ন জেলা শহরে।

দেখা মেলে অপর এক ব্যক্তি মাদারীপুর জেলার শিবচর এলাকার বাসিন্দা মো: আতর আলী শেখ(৩৫)। বছরের ১১টি মাস কাটায় ভ্যান, রিক্সা বা অপরের বাড়ীতে কাজ করলেও বিজয়ের মাস এলে সে নেমে পড়ে ৩০ লাখ শহীদের রক্তে অর্জিত জাতীয় পতাকা হাতে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে। আর এ পতাকা তুলে দেন স্বাধীন দেশের নতুন প্রজন্মের হাতে হাতে।

পতাকা বিক্রেতা শিক্ষার্থী সাদেক খান বলেন, তার কাছে স্টিকার, লাঠি পতাকা, মাথার ফিতা, জিরো পতাকা, ২ ফুট, সাড়ে ৩ ফুট এবং ৫ ফুট পতাকা রয়েছে। ছোট ছোট কোমলমতি শিশুদের কাছে বিক্রি করেন স্টিকার। রিক্সা, ভ্যান ও সাইকেল চালকদের কাছে লাঠি পতাকা বিক্রি করেন । জিরো পতাকা বিক্রি করেন মোটরসাইকেল এবং ছোট যানবাহনের চালকদের কাছে। আর মাথার ফিতা বিক্রি স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের কাছে। ১০ টাকা থেকে শুরু করে ৩০০ টাকা পর্যন্ত বিভিন্ন সাইজের পতাকা বিক্রি করছে।

কেন বিজয়ের মাসে জাতীয় পতাকা বিক্রি করেন? এ প্রশ্নের জবাবে অনার্স পড়ুয়া শিক্ষার্থী পতাকা বিক্রেতা সাদেক খান বলেন, ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে পশ্চিম পাকিস্তানের হাত থেকে ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের এ স্বাধীনতা। স্বাধীনতার এ দেশ বাংলাদেশ। বাংলাদেশ স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪৬ বছরে পদার্পনে আমাদের নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জাগ্রত করাই মূলত আমাদের লক্ষ্য হওয়া উঠিত।

প্রতি বছরের ডিসেম্বর ও মার্চ মাস এলেই তারা ফেরি করে এ দেশের বিভিন্ন স্থানে জাতীয় পতাকা বিক্রি করে বেড়ান। এবারের ডিসেম্বরেও তারা জাতীয় পতাকা বিক্রি করছেন। রাজবাড়ী জেলা শহরের পান্না চত্ত্বর এলাকা থেকে সকাল ৯ টায় ফেরি করে বিক্রি করছেন জাতীয় পতাকা। দুপুরে আবার চলে যাবেন ফরিদপুর জেলায়। এ ভাবেই ফেরি করে পতাকা বিক্রি করতে করতে মাদারীপুর নিজ জেলায় যাবেন তিনি।

মঙ্গলবার সকালে রাজবাড়ী সদর উপজেলার গোয়ালন্দ মোড় ফজের আলী মার্কেটের সামনে মাদারীপুর জেলার শিবচর এলাকার বাসিন্দা মো: আতর আলী শেখের কথা হলে জানা যায়, ১০/১১ বছর ধরে এ পেশায় জড়িত। দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা শহরে পতাকা বিক্রি করে থাকেন। এ বছরও পহেলা ডিসেম্বর থেকেই পতাকা বিক্রি শুরু করেছেন এবং তা চলবে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

স্বাধীনতা ও বিজয়ের মাসে পতাকা বিক্রি করে বেশি আনন্দ পান তিনি। বিজয়ের এ মাসে যদি প্রত্যেকের হাতে একটি করে লাল-সবুজের পতাকা তুলে দিতে পারতেন, তা’হলে তিনি আত্মতৃপ্তি পেতেন।

Tag :

আপনার মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করুন

লেখক তথ্য সম্পর্কে

Meraj Gazi

জনপ্রিয় পোস্ট

রামকান্তুপুর ইউয়িনের মোহনশাহ’র বটতলার গোল চত্বর এর উদ্বোধন

বিজয়ের মাসে লাল-সবুজে মিলে ওরা আছে, রাজবাড়ীতে জাতীয় পতাকা বিক্রেতা মাদারীপুরের অনার্স পড়ুয়া শিক্ষার্থী

আপডেটের সময় : ০৯:০৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৬

মো: মাহ্ফুজুর রহমান, রাজবাড়ী টুডে:

বিজয়ের মাস ডিসেম্বর। এ বিজয়ের মাসে, লাল-সবুজ মিশে, স্বাধীনতার চেতনাকে বাঙালী জাতিকে আবারো মনে করিয়ে দিতে আসে। ডিসেম্বর এলেই সবুজের বুকে লাল পতাকা হাতে দেখা মেলে ওদের। এ মাসে জাতীয় পতাকা বিক্রিতে আত্মতৃপ্তি পায় ওরা। এমন একজন মাদারীপুর জেলার শিবচর এলাকার বাসিন্দা সাদেক খান (১৮)।

মঙ্গলবার সকালে কথা হয় সেই পতাকা বিক্রেতার সাথে। পতাকা বিক্রেতা সাদেক খান মাদারীপুর জেলা শহরের সৈয়দ আবুল হোসেন কলেজের অনার্স (বিএসএস) ২য় বর্ষের ছাত্র। ৩ বোন ১ ভাইয়ের মধ্যে সাদেক সবার ছোট। স্বাধীনতার বীর যোদ্ধাদের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা আর শ্রদ্ধা রেখেই সে এবারই প্রথম বিজয়ের পতাকা বিক্রিতে নেমেছে বিভিন্ন জেলা শহরে।

দেখা মেলে অপর এক ব্যক্তি মাদারীপুর জেলার শিবচর এলাকার বাসিন্দা মো: আতর আলী শেখ(৩৫)। বছরের ১১টি মাস কাটায় ভ্যান, রিক্সা বা অপরের বাড়ীতে কাজ করলেও বিজয়ের মাস এলে সে নেমে পড়ে ৩০ লাখ শহীদের রক্তে অর্জিত জাতীয় পতাকা হাতে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে। আর এ পতাকা তুলে দেন স্বাধীন দেশের নতুন প্রজন্মের হাতে হাতে।

পতাকা বিক্রেতা শিক্ষার্থী সাদেক খান বলেন, তার কাছে স্টিকার, লাঠি পতাকা, মাথার ফিতা, জিরো পতাকা, ২ ফুট, সাড়ে ৩ ফুট এবং ৫ ফুট পতাকা রয়েছে। ছোট ছোট কোমলমতি শিশুদের কাছে বিক্রি করেন স্টিকার। রিক্সা, ভ্যান ও সাইকেল চালকদের কাছে লাঠি পতাকা বিক্রি করেন । জিরো পতাকা বিক্রি করেন মোটরসাইকেল এবং ছোট যানবাহনের চালকদের কাছে। আর মাথার ফিতা বিক্রি স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের কাছে। ১০ টাকা থেকে শুরু করে ৩০০ টাকা পর্যন্ত বিভিন্ন সাইজের পতাকা বিক্রি করছে।

কেন বিজয়ের মাসে জাতীয় পতাকা বিক্রি করেন? এ প্রশ্নের জবাবে অনার্স পড়ুয়া শিক্ষার্থী পতাকা বিক্রেতা সাদেক খান বলেন, ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে পশ্চিম পাকিস্তানের হাত থেকে ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের এ স্বাধীনতা। স্বাধীনতার এ দেশ বাংলাদেশ। বাংলাদেশ স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪৬ বছরে পদার্পনে আমাদের নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জাগ্রত করাই মূলত আমাদের লক্ষ্য হওয়া উঠিত।

প্রতি বছরের ডিসেম্বর ও মার্চ মাস এলেই তারা ফেরি করে এ দেশের বিভিন্ন স্থানে জাতীয় পতাকা বিক্রি করে বেড়ান। এবারের ডিসেম্বরেও তারা জাতীয় পতাকা বিক্রি করছেন। রাজবাড়ী জেলা শহরের পান্না চত্ত্বর এলাকা থেকে সকাল ৯ টায় ফেরি করে বিক্রি করছেন জাতীয় পতাকা। দুপুরে আবার চলে যাবেন ফরিদপুর জেলায়। এ ভাবেই ফেরি করে পতাকা বিক্রি করতে করতে মাদারীপুর নিজ জেলায় যাবেন তিনি।

মঙ্গলবার সকালে রাজবাড়ী সদর উপজেলার গোয়ালন্দ মোড় ফজের আলী মার্কেটের সামনে মাদারীপুর জেলার শিবচর এলাকার বাসিন্দা মো: আতর আলী শেখের কথা হলে জানা যায়, ১০/১১ বছর ধরে এ পেশায় জড়িত। দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা শহরে পতাকা বিক্রি করে থাকেন। এ বছরও পহেলা ডিসেম্বর থেকেই পতাকা বিক্রি শুরু করেছেন এবং তা চলবে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

স্বাধীনতা ও বিজয়ের মাসে পতাকা বিক্রি করে বেশি আনন্দ পান তিনি। বিজয়ের এ মাসে যদি প্রত্যেকের হাতে একটি করে লাল-সবুজের পতাকা তুলে দিতে পারতেন, তা’হলে তিনি আত্মতৃপ্তি পেতেন।